নতুন আইনে সাংবাদিকদের সরকারের কর্মচারীতে পরিণত করার চেষ্টা। নতুন আইনে সাংবাদিকদের বন্দি করার চেষ্টা করা হয়েছে।

রবিবার (৩ এপ্রিল) জাতীয় প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে ‘জাস্টিস ফর জার্নালিস্ট’ নামক ব্যানারে আয়োজিত এক প্রতিবাদ সভা থেকে এসব কথা বলেন সাংবাদিক নেতারা।
নতুন আইন ২০২১-এ সাংবাদিকদের সরকারের কর্মচারীতে পরিণত করার চেষ্টা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন সাংবাদিক নেতারা। তারা বলছেন,নতুন আইনে সাংবাদিকদের বন্দি করার চেষ্টা করা হয়েছে, সাংবাদিকদের কথা বলার অধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে।
প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থেকে এমন আইন আশা করি না। এই আইনের যারা খসড়া তৈরি করেছেন, তারা সাংবাদিকতার শত্রু। সাংবাদিকদের নিয়ে খেলা করবেন না। এই আইনে সাংবাদিকদের ৩য় শ্রেণির কর্মচারীতে পরিণত করেছে। এরকম অসম্মানজনক আইন আমরা মেনে নিতে চাই না।
তারা বলেন, আমরা সরকারের অধীনে কাজ করি না। কিন্তু এই আইনটি করার মানে আমরা যেন সরকারি কর্মচারীর মত কাজ করি। যদি এমনটাই হয় তাহলে সরকারি সুযোগ সুবিধা দেন। কিন্তু তেমনটা তো দিচ্ছেন না।
আইনটির যে খসড়া দেওয়া হয়েছিল তা বদলে ফেলা হয়েছে এমন অভিযোগ করে সাংবাদিক নেতারা বলেন, আমরা যারা সংবাদমাধ্যমে কাজ করি তাদের এক ছাদের নিচে নিয়ে আসার জন্য একটা আইন প্রণয়নের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছিলাম। এখন এমন আইন দিয়েছেন, না পারছি ফেলতে না পারছি গিলতে।
প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে সাংবাদিক নেতারা বলেন, একটা চক্র এই আইনের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ সরকার আর সাংবাদিকদের মুখামুখি দাঁড় করিয়ে দিয়ে একটা বিশৃঙ্খলার তৈরি করার চেষ্টা করছে। আমরা এই আইনের সংশোধন চাই। তা যদি না হয় তাহলে আমরা এই আইন প্রত্যাখ্যান করছি।
মানববন্ধনে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতি কুদ্দুস আফ্রাদ, সাংবাদিক নেতা আশারাফুল ইসলাম আশরাফ, খাইরুল আলম, সাইফ আলি, রহমান মুক্তাদির, জাহাঙ্গীর খান বাবু, সংবাদ টিভির চেয়ারম্যান ও বিএমএসএফ এর সাংগঠনিক সম্পাদক জুয়েল খন্দকার"সহ অন্যান্য সাংবাদিকরা বক্তব্য রাখেন।